তামাক নিষিদ্ধের দাবী বিটা’র

0
99

করোনাভাইরাস প্রথমেই শ্বাসতন্ত্রে আঘাত হানায় করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে তামাক সেবনকারীদের হার বেশি। যাদের অনেকেই বয়সে তরুণর। বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান-আইইডিসিআরে

প্রকাশিত এক ইনফোগ্রাফরে তথ্য নিয়ে এমনটাই দাবি করেছেন বিশ্লেষকরা। তাই অবিলম্বে তামাক নিষিদ্ধের দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

শনিবার (১৬ মে) বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব থিয়েটার আর্টস বিটা’র পক্ষ থেকে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

তাই গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতির মাধ্যমে করোনাকালীন সময়ে তরুণদের রক্ষা ও জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় সাময়িকভাবে তামাক নিষিদ্ধের দাবি জানিয়েছে সংস্থাটি।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে বিভিন্ন দেশ এখন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুসরণ করে চলছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, তামাক ব্যবহারের কারণে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া এবং গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। এছাড়া তামাকজাত দ্রব্য ফুসফুসের সংক্রমণ ও অসুস্থতা বাড়ায় এবং শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দুর্বল করে দেয়। যা করোনা সংক্রমণের জন্য অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। এই সতর্কতা আমলে নিয়ে ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং বতসোয়ানা ইতোমধ্যে তামাকজাত দ্রব্য বিক্রয়ের ওপর সাময়িক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে এই বৈশ্বিক অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগানোর অনুরোধ জানানো হয় বিবৃতির মাধ্যমে।

এই পরিস্থিতিতে মহামারি চলাকালীন জনস্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে সিগারেট, বিড়ি, জর্দা, গুলসহ সকল তামাকজাত দ্রব্য বিপণন ও বিক্রয় নিষিদ্ধের দাবী জানিয়েছে বিটা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here